• Breaking News

    জ্ঞানী হোন ৪ উপায়ে! নিজেকে জ্ঞানী হিসেবে উপস্থাপন করতে মেনে চলুন চারটি উপায় - ব্লগস ৭১

    জ্ঞানী হোন ৪ উপায়ে!
    জ্ঞানী হোন ৪ উপায়ে!


    জ্ঞানী হোন ৪ উপায়ে! নিজেকে জ্ঞানী হিসেবে উপস্থাপন করতে মেনে চলুন চারটি উপায় -


    পৃথিবীতে কেউ জ্ঞানী হয়ে জন্মায় না। মানুষ স্বাভাবিকভাবে তার বুদ্ধিমত্বাকে কাজে লাগিয়ে সামনে এগিয়ে যায়, যা মানুষকে জ্ঞানী প্রমাণিত করে। আর যারা তাদের এই জ্ঞানকে কাজে লাগিয়ে সামনে যেতে পারে তারাই হলেন প্রকৃত সফল মানুষ। মনে রাখবে, অল্পতেই যারা ব্যর্থতার গ্লানি নিজের কাঁধে তুলে নেয় তারা কখনোই সামনে দিকে এগিয়ে যেতে পারে না। তবে নিজের যোগ্যতাকে চিনে তাকে নিজের মধ্যে ধারণ করলে আপনিও হয়ে উঠতে পারবেন একজন জ্ঞানী ব্যক্তিত্বের অধিকারী।

    নিজেকে জ্ঞানী হিসেবে উপস্থাপন করতে মেনে চলুন এই চারটি উপায় -


    ১. একাগ্রতা:

    একাগ্রতা হচ্ছে মানুষের অনেক বড় একটি অস্ত্র। আপনি চাইলে আপনার মনোযোগের মাধ্যমে অসাধ্যকেও সাধন করে ফেলতে পারবেন। শুধু চাই আপনার প্রবল ইচ্ছা শক্তি আর আকাঙ্ক্ষা। মন দিয়ে চাওয়া কোনো কাজ যেমন বিফলে যায়না তেমনি একাগ্রতার সাথে কোনো কিছু আয়ত্বে আনতে চাইলে তা আসতে বাধ্য হয়। একাগ্রতার সাথে ধীরে ধীরে শিখে ওঠা কাজ আপনাকে করে তুলবে জ্ঞানের অধিকারী। আপনার জ্ঞানকোষকে করবে আরো বেশি সমৃদ্ধ।

    ২. সবার মতো না শেখা :

    জন্ম থেকে মৃত্যু পর্যন্ত শেখার কোনো শেষ নেই। শিখতে চাই আমাদের মন থেকে আশা ইচ্ছা গুলো। তবে এই শেখার কাতারে তো থাকি আমরা অনেকেই। তাহলে প্রশ্ন হচ্ছে, সবাই কেন সঠিকভাবে সবকিছু শিখতে পারেনা? এর মূল কারণ হচ্ছে, আমরা সবাই একই পদ্ধতিতে শেখার চেষ্টা করি। ফলে নতুন কোনো রাস্তা সম্পর্কে আমরা জানতে পারিনা। নতুন করে জানতে না চাওয়ার এই ইচ্ছা মানুষকে জানার জগৎ থেকে অনেকটা দূরে রাখে। যারা নতুনভাবে নতুন কিছু শিখতে চায় তারা নানা বাঁধার সম্মুখীন হয় এবং রাস্তাও বের করে আর অনেক কিছু জেনে নিজের জ্ঞান ভাণ্ডারকে সমৃদ্ধ করতে পারে ফলে তারা সফলতার কাছে যেতে থাকে।

    ৩. শুনতে চাওয়ার ইচ্ছা :

    বলতে তো আমরা সবাই পারি। কিন্তু শুনতে পারার ক্ষমতা আমাদের মধ্য খুব কম মানুষেরই থাকে। আপনি যখন শুধু বলেই যাবেন তখন আপনি কিছু শিখতে পারবেন না। আপনার জ্ঞানভাণ্ডারে যা আছে তা এক পর্যাযে শেষ হয়ে যাবে। কিন্তু আপনি যখন কাউকে মন দিয়ে শুনবেন আপনি অনেক নতুন নতুন কিছু তথ্য তার কাছে থেকে জানতে পারবেন। যাতে আপনার ধৈর্য্য যেমন বাড়বে তেমনি অনেক কিছু জানতেও পারবেন। আর এটাই হচ্ছে জ্ঞানীর বৈশিষ্ট্য।

    ৪. অধ্যবসায় :

    আমাদে সবার ভিন্ন পরিবেশ সম্পর্কে জানা উচিত। আপনি যখন কোনো নতুন পরিবেশে যাবেন তখন আপনি অনেক কিছু শিখতে পারবেন। কিন্তু তাও এই শেখার মাঝে অনেক সময় ঘাটতি রয়ে যায়। তখন চোখের সামনে থাকা অনেক কিছুই আমাদের কাছে ধরা পড়ে না। ফলে জীবনের অনেক পর্যায়ে আমরা জানা জিনিস মনে করতে পারি না। তাই নিজের জ্ঞানভাণ্ডার বৃদ্ধি করতে চাই অধ্যবসায়।

    সূত্র - ইন্টারনেট

    No comments

    Hey!
    Thanks for your feedback.

    Post Bottom Ad

    ad728