• Breaking News

    ইলেক্ট্রিক্যাল এন্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং (EEE) - BLOGS71

    ইলেক্ট্রিক্যাল এন্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং (EEE) - BLOGS71
    ইলেক্ট্রিক্যাল এন্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং



    ইলেক্ট্রিক্যাল এন্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং (EEE) -


    EEE এর সম্পূর্ণ নাম হচ্ছে Electrical and Electronic Engineering (ইলেক্ট্রিক্যাল এন্ড ইলেক্ট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং)। তড়িৎ ও ইলেক্ট্রনিক বা ভালাে বাংলায় বৈদ্যুতিন প্রকৌশল।

     প্রকৌশল বিশ্বের খুবই পরিচিত একটা বিষয় বলতে পারাে ইলেকট্রিক্যাল এন্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং। EEE হচ্ছে এমন একটি বিষয় যা Electron নিয়ে আলােচনা করে। এই নামের মধ্য দিয়েই Subject  সম্পর্কে হালকা ধারণা পাওয়া যায় যে, এটা Electrical  সম্পর্কিত subject  নিয়ে আলােচনা করে।

    দুটি অংশ নিয়ে ইলেকট্রিক্যাল এন্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং গঠিতঃ


    ১. Electrical  ও
    ২. Electronic

    এই দুটি অংশ বা subject  নিয়ে সম্পূর্ণ হয় ইলেকট্রিক্যাল এন্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং। ইলেক্ট্রিক্যালে আলােচনা করা হয় মুলত High-Voltage এর জিনিস পত্র নিয়ে। যেখানে আকারে বড় বড় ইলেক্ট্রিক্যাল জিনিস পত্র নিয়ে বিস্তারিত আলােচনা।

    যেমনঃ পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন, Electrical machine , Power supply   ও ম্যানেজমেন্ট।

    Electronic  হচ্ছে আকারে ছােট ও Low Voltage এর জিনিস পত্র নিয়ে আলোচনা করেঃ


    আসলে প্রধান ব্যাপারটা হলাে Electrical  মূলত পরিবাহী ও অপরিবাহী নিয়ে কাজ করে আর ইলেকট্রনিক semiconductor নিয়ে কাজ করে। Electronic subject  এতই মজার জিনিস যে এর ব্যপকতা শুনলে যে কেউই আগ্রহী হয়ে উঠবে আর যারা Robotics  নিয়ে কাজ করতে আগ্রহী তাদের কাজ শুরু হয় ইলেক্ট্রনিক এর DEVICE  নিয়ে। সবচেয়ে পুরনাে এবং প্রচলিত ইঞ্জিনিয়ারিং বিষয়গুলাের মধ্যে ইলেক্ট্রিক্যাল এন্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং অন্যতম আভিজাত্যের অধিকারী। আশেপাশের চারদিকে Electronics এর  বিপ্লব দেখে নিশ্চয়ই এই subject  পড়ুয়াদের গুরুত্ব বা চাহিদা নিয়ে আগ বাড়িয়ে বলে দিতে হয় নাহ! HSC তে প্রিয় বিষয় যদি হয়ে থাকে Math বা Physics তাহলে ইলেক্ট্রিক্যাল এন্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং পড়া নিয়ে কোন ভয় নেই। তুমি নিঃসন্দেহে এখানে খুব সহজেই মানিয়ে নিতে পারবে নিজেকে। তােমার যদি Equation Solve আর Physics second pepper  বিদ্যুতের Chapter গুলাে যদি  খারাপ না লাগে, তাহলে ইলেক্ট্রিক্যাল এন্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং তােমাকে হতাশ করবেনা।

    Electrical instruments   নিয়ে ঘাটাঘাটি করতে মজা লাগে?


    Resistance এর  সমান্তরাল সন্নিবেশ, হুইটস্টোন কার্শফের Math  করতে ভালাে লাগে? তাহলে তােমার জন্যই তাে EEE। ইলেক্ট্রিক্যাল এন্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং পড়তে তােমার উদ্ভবনী ক্ষমতা থাকাটা বেশ জরুরী। এর থেকেও বেশী যেটা লাগবে সেটা হচ্ছে উদ্ভবন করার স্পৃহা। এই EEE তে তুমি খুব Easily তােমার উদ্ভবনী ক্ষমতা বহিঃপ্রকাশ ঘটাতে পারবে। আর আরও একটা মজার জিনিসের সাথে যােগদান করতে পারবে ,আর তা হচ্ছে IEEE (Institute of Electrical and Electronics Engineers) প্রফেশনাল ইঞ্জিনিয়িয়ারিং students  ও Teachers নিয়েই এই সংগঠন। এখানে তুমি যােগাযােগ স্থাপন করতে পারবে বিশ্বের বড় বড় সব বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র ও শিক্ষকদের সাথে দেখতে পারবে বর্তমান বিশ্বের নতুন আবিষ্কার। EEE-তে প্রকাশিত Resource জার্নালগুলােকে বিশ্বের মধ্যে সব থেকে গুরুত্বের সাথে দেখা এবং পড়া হয়। বুঝতেই পারছ কত ওয়েটফুল একটা Organisation । আর নিজের আবিষ্কার গুলাও তুমি তুলে ধরতে পারবে এখানে। তােমার আবিষ্কার যদি হয় মানব কল্যাণমূলক তাহলে EEE তােমাকে বেশ ভালো মানের স্কলারশিপ  দিবে তােমার কাজকে আরও সামনে সামনে এগিয়ে নিতে।

    EEE আসলেই বেশ বড় একটা ক্ষেত্র, এর পরিসরও অনেক ব্যাপক ও বিস্তৃত।


    EEE এর প্রধান ডিভিশন গুলাে হচ্ছেঃ


    1. Power
    2. Electronics
    3. Telecommunication
    4. Computers Power

    এ সেক্টরের ব্যাপারটা মনে হয় সবাই এমনিতেই বুঝতে পেরেছেন। যারা Electric  উৎপাদন আর সরবরাহের দায়িত্বে থাকেন। তাদের এই sector এর  চাহিদা বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে এই মুহুর্তে প্রচুর চাহিদা পুরনের জন্য প্রতি বছরই নতুন নতুন বিদ্যুত কেন্দ্র তৈরি হচ্ছে। আর পদ্মাপাড়ের পাবনা রুপপুরে নব নির্মিত নিউক্লিয়ার প্লান্টে EEE ইঞ্জিনিয়ারদের ব্যাপক চাহিদা আছে। আর এখানে বেশ আকর্ষনীয় বেতন অফারও হয়েছে।

    আর এই sector এর  সম্পূর্ণ দায়িত্বই থাকে ইলেক্ট্রিকাল ইঞ্জিনিয়ারদের হাতে। যারা নিজেকে একজন Power management engineer হিসেবে দেখতে চাও, তারা নিঃসঙ্কোচে EEE Subject  টি নিতে পারাে। Electronics নিয়েও সবাই হালকা পাতলা কিছু জানে। এখনকার সময়ে তােমরা যত devices  দেখ, তার বেশিরভাগই integrated  সার্কিট দিয়ে design  করা। যেমনঃ smartphones  , আইপ্যাড, নােটপ্যাড, Laptops  সবগুলােই Electronics এর অবদান।

    Microcontroller এর নাম হয়তাে কেউ কেউ শুনে থাকবেন। যেখানে Program  লিখে ছােট ছােট জিনিস পত্র Control  করা যায়। Robotics  নিয়ে পড়াশােনার ব্যাপক ইচ্ছা যাদের, তাদের জন্য microcontroller হলাে একেবারে শুরুর ধাপ। তবে হ্যা, এদিক দিয়ে এগোতে হলে অবশ্যই পরিশ্রমী আর উদ্যমী হতে হবে।

    Telecommunication যােগাযােগ নিয়ে কাজ কারবার Mobile phone   কোম্পানিতে মাঝের কয়েক বছর EEE ইঞ্জিনিয়ারদের অনেক চাহিদা ছিলাে। আমাদের মত দেশে মধ্যে নতুন নতুন নেটওয়ার্ক, টাওয়ার, কভারেজ তৈরিসহ সমগ্র System ম্যানেজমেন্টের দায়িত্বে আছে বিপুল সংখ্যক ইইই ইঞ্জিনিয়াররা। শুধু একমাত্র Grameenphone এখন কাজ করছে প্রায় ৫ হাজার প্রকৌশলী, যার বেশিরভাগই ইলেক্ট্রিক্যাল এন্ড ইলেক্ট্রনিক্স ব্যাকগ্রাউন্ডের, যত নতুন নতুন Technology  আসবে, তত চাহিদা Expand করবে। যারা নিজেকে একজন প্রতিষ্ঠিত Telecommunication Engineer হিসেবে দেখতে চাও, তাদের জন্য অবশ্যই EEE is Best. আবার অনেকেই আছে ওয়ারলেস নেটওয়ার্কিং এর গবেষণাতে আগ্রহী তাদের জন্যও দরকার EEE বা ETE ব্যাকগ্রউন্ড থাকা। Computer আসলে এমন এক subject  যাকে কোন কিছু থেকেই আলাদা করা যাবে না। ইলেক্ট্রিক্যাল এন্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং থেকে পড়ে পরবর্তীতে Software Engineer হয়ে গিয়েছে এমন উদাহারণও আছে অনেক, তুমি যদি Programming  ভালাে বুঝ, computer এর   ভালাে দখল থাকে, তবে ইইই পড়েও তুমি খুব সহজেই CSE সাইডে Divert হতে পারবে। কারণ , ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারদেরকে প্রােগ্রামিং এ ও দক্ষ করে গড়ে তােলা হয়। কেননা , Circuit  এর প্রােগ্রামিং এর জন্য Programming  এ ভাল করতে হয়| ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং পড়েছেন বলে যে তুমি Programmer  হতে পারবে না বা Software  বানাতে পারবে না এমন ধারণা পুরােপুরি ভুল। তােমার যদি Electronics এর পাশাপাশি Software  নিয়েও ঘাটাঘাটি করতে ইচ্ছে করে তাহলে তুমি সহজেই ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং নিতে পারাে। এখানে এই সুযােগ প্রচুর আর এখানেই ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারদের পরিধি যে কত ব্যাপক তা বুঝতে পারতেছ। ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারদের কর্মক্ষেত্র নিয়ে আসলেই কোন কথা বলা চলে না। যতদিন পৃথিবী টিকে থাকবে অতদিন এর Demand  কমবে না কখনােই হয়তাে দেশের বাইরেও রয়েছে হাজার হাজার গবেষণা ক্ষেত্র। দেশে বিদেশে সবজায়গাতেই মর্যাদাপূর্ণ একটা জায়গাতে থাকবে। jobs নেই, হাজার হাজার students  হয়ে গেছে, এমন
    শােনা কথায় কান দিতে যেয়েন না. যােগ্যতা আর মেধা থাকে, তবে ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ার পড়ে তােমাকে একদিনও বসে থাকতে হবে না। তুমি ঠিকই তােমার Deserving position এ  যেতে পারবে আর salary। শুধু দেশেই যে ভাল salary নিয়ে জব করতে হবে এমন নয় এটার জন্য দেশের বাইরেও ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারদের Salary  বেশ আকর্ষনীয়।

    একটু Google search   করলেই Prove দেখতে পাবেন। দেশের মধ্যে সরকারী ক্ষেত্রে রয়েছে পিডিবি, পল্লী-বিদ্যুত,বাংলাদেশ পরমাণু শক্তি কমিশনসহ , বাংলাদেশ রেলওয়েসহ অনেক অনেক ক্ষেত্র! আর দেশের বাহিরেও রয়েছে অসংখ্য অসংখ্য ক্ষেত্র! আর তাইতাে বলছি চলে এসাে তড়িতের এই অভাবনীয় দুনিয়ায়। যে পথ ধরে হেটেছেন ভােল্টা, ফ্যারাডে, টেসলা… সে পথ অপেক্ষা করছে তােমারই জন্যও। 

    No comments

    Hey!
    Thanks for your feedback.

    Post Bottom Ad

    ad728